পতাকা বৈঠকে গুলিবর্ষন অস্বীকার বিজিপির, বিজিবির কড়া অবস্থান

ptvinternational news desk:

বাংলাদেশ-মিয়ানমার তুমব্রু সীমান্তে মিয়ানমারের রণ প্রস্তুতিতে সীমান্ত উদ্বেগ উত্তেজনা বাড়ছে। এমনকি জিরো পয়েন্টে ঢুকে মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর হামলা ও ফাঁকা গুলিবর্ষণ তাদের যুদ্ধংদেহী মনোভাবের বহি:প্রকাশ বলেই মনে করছেন পর্যবেক্ষকরা। সীমান্ত অস্ত্রও সৈন্য সমাবশের ঘটনায় আবারো উদ্বেগ উত্তেজনা দেখা দিয়েছে সীমান্ত এলাকায়।
তারা বিজিবিকে উস্কানী দিতে বৃহ্স্পতিবার রাতে ফাঁকা গুলি করেছে জিরো পয়েন্টে। তবে এতে হতাহতের কোনো ঘটনা নিশ্চিত হওয়া যায়নি। এ ঘটনায় সীমান্তে উত্তেজনা বেড়েছে। সতর্ক অবস্থানে রয়েছেন বাংলাদেশের সীমান্তবাহিনী বিজিবি সদস্যরা। গতকাল জুমাবার বিকেলে দুপক্ষের মধ্যে পতাকা বৈঠক অনুষ্ঠিত হলেও ফলাফল শূন্য বলে জানা গেছে। এতে উত্তেজনা কমেনি বলে জানিয়েছেন স্থানীয়রা।
স্থানীয় বিভিন্ন সূত্র জানিয়েছে, বান্দরবানের তমব্রæ সীমান্তের নোম্যান্স ল্যান্ডে রোহিঙ্গাদের ক্যাম্পে গত বৃহস্পতিবার রাতে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী হামলার চেষ্টা করে। এসময় মিয়ানমারের সেনাবাহিনীকে প্রতিরোধ করে ক্যাম্পে অবস্থারত রোহিঙ্গারা। হামলার চেষ্টায় ব্যর্থ হয়ে নোম্যান্স ল্যান্ডে রোহিঙ্গাদের উপর মিয়ানমার সেনাবাহিনী ফাঁকা গুলি ছুড়ে।
স্থানীয় শিক্ষাবিদ হামিদুল হক জানান, রাত হলে জিরো পয়েন্টের রোহিঙ্গা ও স্থানীয়রা উদ্বেগ আতঙ্কে রাত কাটান মিয়ানমার বাহিনীর হিং¯্র আচরণে। কালকেও তারা কয়েক রাউন্ড গুলি ছুড়েছে।
উল্লেখ্য, গত বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই ওই সীমান্তে ভারি অস্ত্রসহ সেনা মোতায়েন করে মিয়ানমার সেনাবাহিনী। বাংলাদেশের পক্ষ থেকে পতাকা বৈঠকের আমন্ত্রণ জানানো হলেও অনেক দেরীতে তারা সাড়া দেয়। বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) সদর দফতর ও স্থানীয় বিজিবির তরফ থেকে বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে। স্থানীয় একাধিক সূত্রে জানা গেছে, নোম্যান্স ল্যান্ডে আশ্রয় নেয়া সাড়ে ছয় হাজার রোহিঙ্গা আতঙ্কিত হয়ে বাংলাদেশে অনুপ্রবেশের চেষ্ঠা চালাচ্ছে। এরই মধ্যে এই হামলার চেষ্টা চালানো হলো।
এছাড়া, বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার তমব্রæ সীমান্তের ওপারে অতিরিক্ত সেনা সমাবেশ করায় গত বৃহস্পতিবার মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূতকে তলব করে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে ডেকে প্রতিবাদ জানিয়েছে বাংলাদেশ।
গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় রাষ্ট্রদূতকে তলব করে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রতিবাদপত্র হস্তান্তর করা হয়েছে। এরই মধ্যে এই হামলার ঘটনা ঘটেছে। এছাড়াও রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসন ঠেকাতে মিয়ানমার কর্তৃপক্ষের এটি একটি অপকৌশল বলেও মনে করছেন পর্যবেক্ষরা।
এদিকে সীমান্তে হঠাৎ মিয়ানমারের অতিরিক্ত সেনা ও সামরিক সরঞ্জাম মোতায়েনের প্রেক্ষাপটে ঢাকায় দেশটির রাষ্ট্রদূতকে ডেকে প্রতিবাদ জানানোর পর এক দিন পেরিয়ে গেলেও পরিস্থিতির তেমন কোনো পরিবর্তন হয়নি। পতাকা বৈঠক হলেও ফলাফল শূন্য বল জানা গেছে।
বিজিবির ৩৪ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল মঞ্জুরুল হাসান খান জানিয়েছেন, বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার তমব্রæ সীমান্তের পরিস্থিতি এখনও থমথমে। সার্বিক বিষয়ে আলোচনার জন্য মিয়ানমারের সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিজিপির সঙ্গে গতকাল বিকাল সোয়া ৩টায় বাংলাদেশ সীমান্তের ঘুমধুম ঢেকিবনিয়া পয়েন্টে পতাকা বৈঠক হয়েছে।
মঞ্জুরুল হাসান বলেন, “গতকাল সকালে মিয়ানমার সীমান্তে শক্তি বৃদ্ধি করায় আমরা প্রতিবাদ জানিয়ে পতাকা বৈঠকের আহ্বান জানিয়েছিলাম। তারা শুক্রবার সময় দিয়েছে।”লেফটেন্যান্ট কর্নেল মঞ্জুরুল হাসান খান আরো জানান, বিজিবিকে সীমান্তে সতর্ক অবস্থানে রাখা হয়েছে, সার্বিক নজরদারিও বাড়ানো হয়েছে।